১ লাখ ৩৬ হাজার ক্ষুদ্র কৃষক আসছে ঋণের আওতায়

ক্ষুদ্র কৃষক

কৃষি উৎপাদন সক্ষমতা বাড়াতে নতুন করে দেশের ১ লাখ ১৮ হাজার ক্ষুদ্র কৃষককে ঋণ দেবে সরকার। এ কৃষি ঋণের সুদহার হবে ১১ শতাংশ। তবে সুফলভোগীদের তহবিলে সুদের ১ শতাংশ যুক্ত হবে। এই প্রকল্পের আওতায় কিছু বৃহৎ ঋণও দেওয়া হবে। এর ফলে প্রকল্প অনুমোদনের পর ঋণের আওতায় আসবে আরো মোট ১ লাখ ৩৬ হাজার কৃষক।

প্রকল্পের আওতায় আড়াই থেকে ৫ শতাংশ জমি থাকলেই কোনো ব্যক্তিকে ক্ষুদ্র কৃষক হিসেবে বিবেচনা করে এ ক্ষুদ্রঋণ দেওয়া হবে। ঋণ দেওয়ার দুই মাস পর থেকে সুদ আদায় শুরু হবে। প্রকল্পের প্রথম ধাপে ক্ষুদ্রঋণের পরিমান হবে ৩০ থেকে ৭০ হাজার টাকা। তবে প্রকল্পের আওতায় কিছু কৃষক বা বর্গা নেওয়া খামারিদের দেওয়া হবে বড় এমাউন্টের ঋণ এবং এর পরিমান দেড় লাখ থেকে চার লাখ টাকা পর্যন্ত।

প্রকল্পটি আগামি বুধবার একনেক সভায় উপস্থাপন করা হবে। ক্ষুদ্র কৃষক উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের উপ-মহাব্যবস্থাপক মো. আবুল কালাম আজাদ সংবাদ মাধ্যমে বলেন, ক্ষুদ্র কৃষক উন্নয়ন ফাউন্ডেশন অলাভজনক সংস্থা। আমরা ১১ শতাংশ সার্ভিস চার্জ নিই। এটা সুদ নয়, সার্ভিস চার্জ। ব্যাংক ঋণের সঙ্গে এর তুলনা করলে হবে না। আমরা কৃষকের ঘরে ঘরে গিয়ে ঋণ দিয়ে আসি। এ কাজে এনজিওগুলো ২৮ থেকে ৩০ শতাংশ সুদ নেয়। আমরা নিচ্ছি ১১ শতাংশ সার্ভিস চার্জ। ১ শতাংশ সার্ভিস চার্জ আবার কৃষকদের ফেরত দেওয়া হবে। আমরা প্রফিট করি না, আয় থেকে ব্যয় হবে।

প্রকল্পটি অনুমোদনের পর ৩০ জুন ২০২৪ সাল নাদাগ বাস্তবায়িত হবে বলে আশাপ্রকাশ করা হচ্ছে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.